“আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন”-পৃথিবীর ব্যয়বহুল গবেষণা গুলো যেখানে হয়!

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন পৃথিবীর চারদিকে একটি বৃহৎ মহাকাশযান। এটি এমন একটি বাড়ি হিসাবে কাজ করে যেখানে নভোচারী এবং মহাকাশচারীরা থাকেন। স্পেস স্টেশনটিও একটি অনন্য বিজ্ঞান পরীক্ষাগার। বেশ কয়েকটি জাতি মহাকাশ স্টেশন তৈরি ও ব্যবহারে এক সাথে কাজ করেছিল। মহাকাশ স্টেশন তৈরির পার্টস মহাকাশচারীদের দ্বারা মহাকাশে একত্রিত হয়েছিল। এটি প্রায় ২৫০ মাইল দৈর্ঘ্যের গড় উচ্চতায় পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে।মহাকাশে বাস করা এবং কাজ করা সম্পর্কে আরও জানতে নাসা স্পেস স্টেশনটি ব্যবহার করছে। এই পাঠগুলির মাধ্যমে মানুষকে আগের চেয়ে আরও বেশি মহাকাশে প্রেরণ করা সম্ভব হবে।

ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনটির প্রথম অংশটি ১৯৯৮ সালের নভেম্বরে চালু।। এবং ধাপে ধাপে আরো এগিয়ে ছিল।। এই স্টেশন লোকদের বসবাসের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আগে পরের দু’বছরে আরও অংশ যুক্ত হয়েছিল। প্রথম ক্রু ২০০০ সালে এ এসেছিল। তখন থেকেই স্টেশনে বাস করা শুরু হয়। সময়ের সাথে আরও অংশ যুক্ত করা হয়েছে এই স্পেস স্টেশন এ। বিশ্বজুড়ে নাসা এবং তার অংশীদাররা ২০১১ সালে স্পেস স্টেশনটির নির্মাণ কাজ শেষ করেছিল।

স্পেস স্টেশনটিতে পাঁচ বেডরুমের ঘর বা দুটি বোয়িং ৭৪৭ জেটলিনা কে ধারণ করার মত আয়তন রয়েছে। এটি ছয় জনের ক্রু, প্লাস দর্শনার্থীদের সহায়তা করতে সক্ষম। পৃথিবীতে, মহাকাশ স্টেশনটির ওজন প্রায় এক মিলিয়ন পাউন্ড হত। এর সৌর অ্যারের প্রান্তগুলি থেকে পরিমাপ করা, স্টেশনটি শেষ অঞ্চলগুলি সহ একটি ফুটবলের ক্ষেত্রফল জুড়ে। এর মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, জাপান এবং ইউরোপ থেকে প্রাপ্ত পরীক্ষাগার মডিউল অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

গবেষণাগারগুলি ছাড়াও যেখানে নভোচারীরা বিজ্ঞান গবেষণা করেন, সেখানে মহাকাশ স্টেশনের আরও অনেক অংশ রয়েছে। প্রথম রাশিয়ান মডিউলগুলিতে স্পেস স্টেশনটির কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় বেসিক সিস্টেমগুলি অন্তর্ভুক্ত ছিল। তারা ক্রু সদস্যদের জন্য থাকার জায়গাও সরবরাহ করেছিল। “নোডস” নামে পরিচিত মডিউলগুলি স্টেশনের অংশগুলিকে একে অপরের সাথে সংযুক্ত করে।

মহাকাশ স্টেশনের চারদিকে প্রসারিত হ’ল সৌর অ্যারে। এই অ্যারে বৈদ্যুতিক শক্তি সরবরাহের জন্য সূর্য থেকে শক্তি সংগ্রহ করে। অ্যারেগুলি দীর্ঘ ট্রাসের সাথে স্টেশনে সংযুক্ত থাকে। ট্রসের উপর রেডিয়েটারগুলি রয়েছে যা স্পেস স্টেশনটির তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।

স্পেস স্টেশনের বাইরে রোবোটিক অস্ত্র লাগানো হয়। স্পেস স্টেশন তৈরিতে সহায়তা করতে রোবট অস্ত্রগুলি ব্যবহার করা হয়েছিল। এই বাহুগুলি যখন মহাকাশচারীদের বাইরে স্পেসওয়াকগুলিতে যায় তখন তারা চারপাশেও যেতে পারে। অন্যান্য অস্ত্র বিজ্ঞান পরীক্ষা চালায়।

মহাকাশচারী বাইরের দিকে খোলা বিমানগুলি দিয়ে স্পেসওয়াকগুলিতে যেতে পারেন। ডকিং পোর্টগুলি অন্য মহাকাশযানকে মহাকাশ স্টেশনে সংযোগ করার অনুমতি দেয়। বন্দর দিয়ে নতুন ক্রু এবং দর্শনার্থীরা আগত। নভোচারীরা রুশ সোয়ুজ-এর মহাকাশ স্টেশনে ওড়ে। রোবোটিক মহাকাশযান সরবরাহ করার জন্য ডকিং বন্দর ব্যবহার করে।

মহাকাশ স্টেশনটি মানুষের পক্ষে মহাকাশে অবিচ্ছিন্ন উপস্থিতি সম্ভব করেছে। প্রথম ক্রু আসার পর থেকে মানুষ প্রতিদিন মহাকাশে বাস করে। স্পেস স্টেশনটির পরীক্ষাগারগুলি ক্রু সদস্যদের এমন গবেষণা করার অনুমতি দেয় যা অন্য কোথাও করা যায়নি। এই বৈজ্ঞানিক গবেষণা পৃথিবীর মানুষের উপকার করে। এমনকি মহাকাশ গবেষণা দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত হয়। ফলাফলগুলি হ’ল “স্পিনফস” নামে পরিচিত পণ্য। মানুষ দীর্ঘকাল ধরে মাইক্রোগ্রাভিটিতে বেঁচে থাকলে শরীরের কী ঘটে তাও বিজ্ঞানীরা অধ্যয়ন করে। নাসা এবং এর অংশীদাররা কীভাবে একটি মহাকাশযানকে ভালভাবে চালিত রাখতে হয় তা শিখেছে। এই সমস্ত পাঠ ভবিষ্যতের স্থান অনুসন্ধানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে।

ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন একটি বাসযোগ্য কৃত্রিম উপগ্রহ। এটি আন্তর্জাতিক মহাকাশ সহযোগিতায় পাঁচটি মহাকাশ গবেষণা সংস্থার একটি সমন্বিত প্রকল্প।

ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনকে “সুস্থ” রাখার জন্য সম্প্রতি ওপেন হার্ট সার্জারির প্রয়োজন হল মহাকাশেও! ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনের যাবতীয় কাজকর্ম করে কম্পিউটার। সেই ২০০০ সাল থেকে কতগুলো ইউরোপিয়ান কম্পিউটার ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনকে জীবিত রেখেছে।

স্পেস সংক্রান্ত বিভিন্ন ডেটা সংগ্রহ, নেভিগেশন ও যোগাযোগের জন্য কম্পিউটারগুলো খুবই প্রয়োজনীয় স্পেস স্টেশনের জন্য।নাসা বর্তমানে অন্যান্য জগতকে অন্বেষণ করার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে। স্পেস স্টেশন প্রথম ধাপগুলির মধ্যে একটি।

ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন একটি বাসযোগ্য কৃত্রিম উপগ্রহ। এটি আন্তর্জাতিক মহাকাশ সহযোগিতায় পাঁচটি মহাকাশ গবেষণা সংস্থার একটি সমন্বিত প্রকল্প।২০১৫ সালে এরজন্য উপযুক্ত নতুন সার্কিট বোর্ড বানানো হয়। ।২০১৮ সালের শেষের দিকে নতুন সার্কিট বোর্ড-সহ ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনের উদ্দেশে রওনা দেন প্রশিক্ষিত মহাকাশচারীরা। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করা হয় ওই সার্কিট বোর্ড। কিন্তু এতেও সন্তুষ্ট হতে পারছিলেন না মহাকাশচারীরা। তাদের অপারেশনকে সফল ঘোষণার জন্য আরও অপেক্ষা করতে হয়।

মানুষ উড়তে শেখার পর খুব একটা বেশি সময় নেয়নি মহাকাশে বসবাস শুরু করতে। আইএসএস তারই এক উজ্জ্বল উদাহরণ। অদূর ভবিষ্যতে মঙ্গল গ্রহে যাত্রার পূর্বপ্রস্তুতি বলা চলে একে। নানা ঘটনা-দুর্ঘটনা আর আবিষ্কারের মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত হচ্ছে আইএসএস এর। সামনে দিনগুলোতে কী অপেক্ষা করছে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

বলে রাখা ভালো, সব ক্ষেত্রেই আকাশে দেখা চলমান উজ্জ্বল বিন্দুটি যে আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রই হবে এমনটা নয়। প্রায় ১০০এরও বেশি উপগ্রহ দেখা যায় পৃথিবী থেকে। তবে সেগুলো দেখার জন্য আপনাকে পাড়ি জমাতে হবে শহর থেকে অনেক দূরে প্রত্যন্ত কোনো এক গ্রামে যেখানে আলোর কৃত্রিমতার ছাপ নেই। তবে পৃথিবী থেকে দৃশ্যমান সবচেয়ে উজ্জ্বল বস্তুগুলোর মধ্যে প্রথম সারিতে থাকায় আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনেরর দেখা পাবার সম্ভাবনাই বেশি। এর উজ্জ্বলতা শুক্র গ্রহের মতোই।