ফুটবল মাঠের শিল্পী জাভি হার্নান্দেজ

স্পোর্টস ডেস্কঃ কখনো সুন্দর ট্যাকনিকে ডিফেন্স লাইনের জন্য বল আটকান, কখনো নিজের পায়ে তিনি রাখেন বল, কখনো বল বাড়ান ফ্রন্টে থাকা ফরওয়ার্ডদের উদ্দেশ্য, কখনো তিনি একদম দু’ ফুট পাশে থাকা সতীর্থদের সাথে শর্ট পাস করে ফেলেন, ফ্রি-কিকে ও তো কম ছিলেন না জাভি? খেলোয়াড় হিসেবে অন্তত নম্র, ভদ্র তিনি। স্পেন জাতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপ, ইউরো, এবং ক্লাব ক্যারিয়ারে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের ট্রফির পাশাপাশি অন্য ট্রফি ও জয় করেছেন তিনি৷ পাবলো পিকাসোদের মতো শিল্পীরা যেমন শিল্পকর্মে নিজেদের শিল্পের পরিচয় দেয় তেমনি মধ্য মাঠে তিনি যেন এক ফুটবলীয় শিল্পী৷ পাঠক বলছিলা স্পেন এবং বার্সা দলের লিজেন্ড জাভি হার্নান্ডেজের কথা৷

১৯৮০ সালের ২৫ শে জানুয়ারি স্পেন এর তেরাস্সা শহরের এক বাড়িতে ঘর আলো করে জন্ম নেয় এক বিস্ময় বালক, তখন হয়তোবা তার বাবা-মা,আত্নীয় স্বজন,প্রতিবেশীরা বুঝতেই পারেনি একদিন এই ছেলেটিই হবে ফুটবলের মধ্যমাঠের কান্ডারি, এক জীবন্ত কিংবদন্তী।তার বাবা জোয়াকিম ছিলেন স্পেন এর এক অখ্যাত ক্লাব সাদাবেল এর প্রথম ডিভিশন এর একজন সাবেক খেলোয়ার। তার বাবার ফুটবল রক্ত থেকেই তার মধ্যেও প্রবাহিত হচ্ছিল ফুটবলের আবেগ। তাইতো মাত্র ১১ বছর বয়সে তাকে ভর্তি করা হয় বিশ্বের অন্যতম ফুটবল খেলোয়ার তৈরির একাডেমি বার্সেলোনার লা মাসিয়ায়। তার পর চলতে থাকে তার পথচলা। সে কিছুদিন সেখানে খেলার পর তার সিনিয়র ক্যারিয়ার শুরু করে বার্সেলোনা বি দলে এবং তখনকার কোচ গঞ্জালভোকে সাথে নিয়ে বার্সেলোনা বি দলকে সেকেন্ড ডিভিশন এ উন্নতি করে।

জাভি হার্নান্ডেজের ক্লাব ক্যারিয়ারঃ ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত বার্সা একাডেমিতে খেলেছেন তিনি। ১৯৯৭-৯৯ সাল পর্যন্ত বার্সা বি দলের হয়ে ৫০ এর অধিক ম্যাচ খেলেন এই মিডফিল্ডার৷ সবশেষে ১৯৯৮ সালে বার্সেলোনা মূল দলের অভিষেক হয় এই খেলোয়াড়ের৷ জাভির অগ্রগতি তাকে ৫ মে ১৯৯৮ সালে লেলিডার বিপক্ষে কোপা কাতালুনিয়া ম্যাচে প্রথম দলের উপস্থিতি অর্জন করতে পেরেছিলো এবং ম্যালোর্কারার বিপক্ষে সুপার কাপের ফাইনালে তিনি ১৮ই আগস্ট ১৯৯৮ সালে প্রথম গোল করেছিলেন। লা লিগায় তার আত্মপ্রকাশ বার্সেলোনার হয়ে ৩-১ ব্যবধানে জয় দিয়ে অক্টোবর 1998 সালে ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে এসেছিল। প্রথমদিকে রিজার্ভ এবং সিনিয়র দলের উভয় পক্ষের মাঝেমধ্যে বৈশিষ্ট্যযুক্ত জাভি রিয়াল ভালাদোলিডের বিপক্ষে ১-০ ব্যবধানে জয়ের একমাত্র গোলটি করেছিলেন যখন বার্সেলোনা লিগে দশম অবস্থানে ছিল। অবিচ্ছিন্নভাবে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের অর্থ হ’ল তিনি লুই ভ্যান গালের শিরোপা বিজয়ী দলের অন্যতম প্রধান সদস্য হয়েছিলেন, ২৬ ম্যাচ খেলে তার প্রথম সিজন শেষ করেছেন এবং ১৯৯৯ সালের লা লিগা ব্রেকথ্রু প্লেয়ার অফ দ্য ইয়ার নির্বাচিত হয়েছেন। জাভি ১৯৯৯-২০০০ মৌসুমে পেপ গার্দিওলার চোটের পরে বার্সেলোনার প্রধান প্লেমেকার হয়েছিলেন।

এই বছরগুলিতে, বার্সেলোনা দেউলিয়ার পথে এবং লা লিগার অভিজাতদের মধ্যে নিজের জায়গা বজায় রাখার লড়াইয়ে ছিল। মিডফিল্ড খেলছেন, তবে আরও প্রতিরক্ষামূলক ভূমিকায় জাভি ২০টি এসিস্ট করেছেন এবং সেই দুটি মৌসুমে ৭ টি গোল করেছেন। ১৬ মার্চ ২০০২ সালে তিনি রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে এল ক্লাসিকোতে নিজের প্রথম গোল করেছিলেন। জাভিকে ২০০৪-০৫ মৌসুমে সহ-অধিনায়ক মনোনীত করা হয়েছিল, যেখানে তিনি বার্সেলোনাকে লা লিগা এবং ২০০৪-এর সুপারকোপ জিততে সহায়তা করেছিলেন।২০০৫ সালে তাকে লা লিগায় স্প্যানিশ খেলোয়াড়দের মধ্যে সেরা ঘোষণা করা হয়েছিল।২০০৫-০৬ মৌসুমে জাভি প্রশিক্ষণে তাঁর বাম হাঁটুতে লিগামেন্ট ছিঁড়েছিলেন; তিনি চার মাসের জন্য ছিলেন না তবে এপ্রিলে ফিরে এসেছিলেন এবং ২০০৬ সালের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে আর্সেনালের বিপক্ষে বার্সেলোনার জয়ের জন্য বিকল্পধারার বেঞ্চে ছিলেন। তিনি আবার লা লিগা এবং সুপারকোপা দে এস্পাসাও জিতেছিলেন সে বছর।

২০০৮ ইউরোর প্লেয়ার অফ দ্যা টুর্নামেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর জাভিকে নিতে চেয়েছিলো বায়ার্ন মিউনিখ৷ কিন্তু তখনকার বার্সা কোচ গার্ডিওয়ালার অনুরোধে জাভি বার্সাতেই থেকে যান। ২০০৯ সালে ট্রেবল জয়ী দলের অন্যতম একজন খেলোয়াড় ছিলেন তিনি। সে বছর কোপা দেল রে এর ফাইনালে ফ্রি-কিক থেকে গোল করেছিলেন, এরপর এল ক্লাসিকোর ম্যাচে চারটি এসিস্ট করেছিলেন জাভি। ২০০৯ সালের চ্যাম্পিয়নস লীগের ফাইনাল ম্যাচে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে ও করেছেন এসিস্ট৷ সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে জাভি সে সিজনে ২৯ এসিস্ট করেছিলেন এবং এরপর পরই ক্লাবের সাথে ২০১৪ সাল পর্যন্ত চুক্তি হয় জাভির৷ আগামী বছর এল ক্লাসিকোর ম্যাচে গোল পান জাভি এবং আর্সেনালের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লীগের ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ গোল করেন তিনি।

জাভি ২০১০ ফিফার ব্যালন ডি’অরের তালিকায় থাকা তিন ফাইনালিস্টদের মধ্যে একজন ছিলেন এবং বার্সেলোনার সতীর্থ লিওনেল মেসি এবং আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার পিছনে ভোটে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন। ] তিনি মেসিকে সংকীর্ণভাবে পরাস্ত করে ওয়ার্ল্ড সকার ম্যাগাজিনের বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরষ্কার জিতেছিলেন। ২ জানুয়ারী, ২০১১ সালে লেভান্তেয়ের বিপক্ষে লিগের ম্যাচে জাভি মিজুয়ালি রেকর্ডের সাথে মিলে সমস্ত প্রতিযোগিতায় ক্লাবের হয়ে তার ৫৪৯ তম ম্যাচ খেলেন । জাভি পরে বার্সেলোনার হয়ে সর্বকালের সর্বাধিক ম্যাচ খেলা প্লেয়ার হয়েছিলেন। ২৮ শে মে, জাভির দল বার্সা লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ২০১১ উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে এক মৌসুম পরই চ্যাম্পিয়নস লীগের ট্রফি হাতে নিয়েছিলো৷

জাভি ২০১১-১২ মৌসুমটি দুর্দান্ত গোলস্কোরিং ফর্মে শুরু করেছিলেন। ১৮ ই ডিসেম্বর, ২০১১ সালে ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে ইয়োকোহামায়, ব্রাজিলিয়ান দলের সান্তোসের বিপক্ষে বার্সেলোনা ৪-০ ব্যবধানে জয়লাভ করার ম্যাচে জাভি একটি গোল করেছিলেন এবং লিওনেল মেসির জন্য একটি এসিস্ট করেছিলেন। বলটি তার পিছনে কিছুটা পিছনে থাকার পরে, জাভি প্রথম গোলে মেসির কাছে একটি পাস পিছলে যাওয়ার আগে, এটি নিয়ন্ত্রণে কার্যকরভাবে তার গোড়ালিটি ব্যবহার করে বলটিকে একটি ককযুক্ত পা দিয়ে নামিয়ে আনল।জাভি উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সেলোনার গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ মিলানের বিপক্ষে গ্রুপ এইচ খেলায় জয়ী গোলটি করেছিলেন। মোট কথা, ২০১১-১২ মৌসুমে জাভির দশটি লীগ গোল, কোপা দেল রে-তে দুটি – বার্সেলোনা জিতেছে – এবং ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে একটি জয়ের সাথে তার ক্যারিয়ারের সেরা গোলদাতার প্রত্যাবর্তন ট্যাগ এসেছিলো৷

বার্সেলোনার হয়ে ৩-২ ব্যবধানে জয়ী ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে তিনি একটি গোল করেছিলেন। সতীর্থ ইনিয়েস্তা, মেসি এবং দানি আলভেসের সাথে ফিফা ওয়ার্ল্ড ইলেভেনে জাভির নাম ঘোষণা করা হয়েছিল।] ২০১৩ সালের শুরুতে বার্সেলোনা তাদের লা লিগা শিরোপা অর্জন করেছিলো৷

১৬ ই জানুয়ারী, ২০১৪ সালে জাভি কোপা দেল রেতে গেটেফের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে নিজের 700 তম ম্যাচে মাঠে নামেন৷ গত পাঁচ বছরে প্রথমবারের মতো বার্সেলোনা কোনও বড় ট্রফি ছাড়াই মৌসুম শেষ করেছে; তারা কোপা দেল রে ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে পরাজিত হয়েছিল। ২০১৪ সালের জুনে জাভি ক্লাব ছেড়ে চলে যাবেন বলে ঘোষণা করা হয়েছিলো৷ ] ২২ জুলাই, সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত ম্যানেজার এবং প্রাক্তন সতীর্থ লুইস এনরিকের সাথে আলাপের পরে জাভি আরও একটি সিজনের জন্য ক্যাম্প ন্যুতে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।জাভি ক্লাব অধিনায়ক হিসাবেও দায়িত্ব পেয়েছিলেন। ২৫ এপ্রিল ২০১৫ সালে জাভি তার ৫০০ তম লা লিগার ম্যাচ খেলেন। ৪ জুন, জাভির বিদায়ের জন্য খেলোয়াড়, পরিচালক, বন্ধুবান্ধব এবং পরিবার তাকে শ্রদ্ধা জানাতে বার্সেলোনায় একটি বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছিল। জুন ২০১৫-তে, জাভি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল চলাকালীন বার্সেলোনার হয়ে চূড়ান্ত উপস্থিতির জন্য ৭৮ তম মিনিটের বদলি হয়ে এসেছিলেন,কারণ ক্লাবটি বার্লিনের অলিম্পিয়াস্ট্যাডিয়নে জুভেন্টাসকে হারিয়ে পঞ্চম ইউরোপীয় কাপ জিতেছিল। ক্লাব অধিনায়ক হিসাবে জাভি ট্রফি তুলেছিলেন। এটি বার্সেলোনাকে ঘরোয়া লিগ, ঘরোয়া কাপ এবং দুইবার ইউরোপীয় কাপের ট্রাবল জয়ের ইতিহাসের প্রথম ক্লাব করে তুলেছে। জাভি, ইনিয়েস্তা, মেসি, জেরার্ড পিকি, পেড্রো, সার্জিও বুস্কেয়েটস এবং দানি আলভেস দু’জনই ত্রয়ী-বিজয়ী দলের অংশ ছিলেন। তাছাড়া জাতীয় দলের বিশ্বকাপ ট্রফি, ইউরো ট্রফি স্বাদের মোমেন্টতো জাভির আছেই।

ভালোবেসে, সখী, নিভৃতে যতনে

আমার নামটি লিখো– তোমার

মনের মন্দিরে।

এই লাইনের মতো হয়তো বার্সার কোটি কোটি সমর্থক জাভির নামটি লিখে রেখেছে তাদের মনে, আগলে রেখেছে তাকে বুকে৷ হয়তো কোনো এক বয়সে আমাদের প্রিয় জাভিই বার্সার দায়িত্বে আসবেন।

You might also like
Leave A Reply

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy