মঙ্গল গ্রহে কি সত্যি মানুষ বসবাস করার জন্য কিছু রয়েছে?

মঙ্গল গ্রহ এবং পৃথিবীর মধ্যে অনেক মিল রয়েছে। মঙ্গলে পাথরের প্লানেট এবং পা রাখার জন্য কিছু জায়গা রয়েছে। এতে পৃথিবীর মতোই অনেক পাহাড় পর্বত রয়েছে। এবং বায়ুমণ্ডল রয়েছে আর প্রাণ বাঁচানোর একমাত্র উপায় পানীয় রয়েছে। তাই মঙ্গল গ্রহে মানুষ বসবাস করা একদম অযুক্তিক কিছুই নয়। সৌরজগতের অন্যান্য গ্রহ ছেড়ে কেন এ মঙ্গলগ্রহে? আমার এই আর্টিকেলের থেকে আপনারা আরো বিস্তারিত অনেক কিছু জানতে পারবেন।

মঙ্গল গ্রহে মানুষ যাত্রা করবে ভাই কথা। কিন্তু মঙ্গল গ্রহে মানুষের জন্য বাস করাটা কতটা উপযুগি?। বা মঙ্গল গ্রহে কি মানুষ সত্যি মানুষ বসবাস করতে পারবে? এই আর্টিকেলটি মঙ্গল সম্পর্কে ধারনা আপনাকে বদলে দিতে পারে। কারণ এখানে ভেজাল শুক্র আর মরুভূমি ছাড়া আর কিছুই না। মঙ্গলে বসবাস করার জন্য পরিমান মত পানি মজুদ নেই। এর মেরু অঞ্চলে কিছু বরফ রয়েছে হতে পারে এই সারফেস কিছু তরল পানীয় পাওয়া যেতে পারে। কিন্তু সেই পানির মানুষের জীবন যাপন করার জন্য সেরকম যথেষ্ট নয়। একটা সমস্যা হচ্ছে মঙ্গলে সঠিকভাবে তাপমাত্রা ধরে রাখার মতো ক্ষমতা নেই।

মঙ্গল গ্রহের গরমে সবচেয়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকে 20 ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে এ তাপমাত্রা খুব একটা বেশি নয়। তবে একটু জিজ্ঞাসা করি তাহলে এর তাপমাত্রা সর্বোচ্চ -55 ডিগ্রি সেলসিয়াস। এবং এর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা -153 ডিগ্রী সেলসিয়াস। যা সহ্য করা একেবারেই অসম্ভব। তবে ভবিষ্যতে হয়তো এই তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা অনেক সহজ হয়ে যাবে। এতে স্পেশাল বাসস্থান করে এর তাপমাত্রা থেকে রেহাই করা যেতে পারে। কিন্তু তাপমাত্রা একমাত্র সমস্যা নয়। কিন্তু এর বিরাট একটি সমস্যা রয়েছে সেটি হচ্ছে এই মঙ্গলে বায়ুমন্ডলের অক্সিজেন অনেক কমতি রয়েছে।

ডায়মন্ড এর পরিমাণ মাত্র 0.14 শতাংশ অক্সিজেন হয়েছে। আর যেখানে পৃথিবীতে প্রায় ২১ শতাংশ অক্সিজেন রয়েছে। মঙ্গলে বসবাস করার আরেকটি যুকি হচ্ছে রেডিয়েশন। আমাদের পৃথিবীতে রয়েছে সক্রিয় আইরন কুল। যেটার ফলে তৈরি করে সক্রিয় চমুক ক্ষেত্র। এর এই চমুক ক্ষেত্র সোলার রেডিয়শন থেকে। বা গভীর জায়গা থেকে আসা রেডিয়শন থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করতে পারে। মঙ্গলের কোর যেহেতু নিভু নিভু তাই এর চমুক ক্ষেত্র একদম কম বা নেই বললেই চলে। এর ফলে মঙ্গলে থাকলে অতিরিক্ত পরিমানের রেডিয়শনের কারনে আপনার ক্যান্সার এর ঝুকি বেড়ে যেতে পারে।

মঙ্গলে বসবাস করতে চাইলে এর চারটি বিষয়ে পরিবর্তন আনতে হবে।

১। ঠান্ডার সময় তাপমাত্রা বাড়াতে হবে। জাতে কেউ জমে না যায়।
২। বায়ুমন্ডলের চাপ বাড়াতে হবে যাতে লিকুইড পানি সেখানে ধরে রাখতে পারে।
৩। বায়ুর মধ্যে অক্সিজেন বড়াতে হবে যাতে খোলা আকাশের মধ্যে থেকে খুব সহজেই অক্সিজেন নেওয়া যেতে পারে।
৪। ম্যাগ্নেটিক এর ফিল্ড বাড়াতে হবে। যাতে যেকোনো সোলার রেডিয়েশন থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

আমাদের যে বর্তমান টেকনোলজি এতে মঙ্গোলে বসবাস করা যাবে না। কেনোনা এই ৪ টি বিষয় যদি পরিবর্তন করা যায় তাহলে মঙ্গলে বসবাস করা সম্ভব হবে। তবে এটা আমার আপনার জীবনে নাও হতে পারবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *