স্মার্টফোনের ক্যামেরা দিয়ে কি কিছু কাজ করা সম্ভব যা ক্যামেরার বিকল্প হিসেবে?

হ্যালো বন্ধুরা আবারো নতুন আর্টিকেলের আপনাদের সবাইকে স্বাগতম। কষ্ট করে প্রতিদিন আমারে আর্টিকেলগুলো পড়তেছেন। এবং আমাকে আর্টিকেল লেখার জন্য উৎসাহ করতেছ। আজকে আমি আর একটি নতুন পোস্ট নিয়ে হাজির হলাম আপনাদের মাঝে। পোস্টটি ফোনের ক্যামেরা নিয়ে বর্তমান সময়ে আমাদের ফোনের ব্যবহার প্রচুর আজকালের মধ্যে অনেক ভালো ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়ে। আজকাল সবার হাতের মুঠোয় হয়ে গেছে। সবাই নিজের ছবি অথবা বিভিন্ন দৃশ্য ভিডিও ক্যামেরাবন্দি করতে অনেক ভালোবাসে। সবাই কমবেশি কোন না কোন ছবি তুলে থাকে স্মার্টফোন মাধ্যমে। কিন্তু এই স্মার্টফোনের ক্যামেরা দিয়ে কি কিছু কাজ করা সম্ভব যা ক্যামেরার বিকল্প হিসেবে? এর উত্তর এভাবে হ্যাঁ করা সম্ভব।

আপনি হয়তো একটু আশ্চর্য হতে পারেন যে ক্যামেরার কাজ কিভাবে মোবাইল যা করা সম্ভব হবে সেটা তো ক্যামেরার এটাতো মোবাইল। কিন্তু আপনি কি জানেন বর্তমান স্মার্টফোনেও অনেক ভালো ভালো ক্যামেরা যুক্ত করা হয়েছে। আগেকার যুগে স্মার্টফোনে ২-৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা যুক্ত করা হতো। কিন্তু বর্তমান সময়ের স্মার্টফোনগুলোতে ১২ মেগাপিক্সেলের সর্বনিম্ন এবং ৪৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা বাজারে লঞ্চ হয়েছে। এবং তা এই বছরের শুরুতেই। আবার কয়েকদিন আগেই ৬৪ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা লঞ্চ হয়েছে বাজারে। আবার বিভিন্ন নিউজ পেপার বা মোবাইল স্পেসিফিকেশন ওয়েবসাইটগুলোতে থেকে জানতে পারি যে আবারও ১০৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা লঞ্চ করতে শুরু করেছে। তাহলে একবার আপনি চিন্তা করে দেখুন মোবাইল ফোনের ক্যামেরা কোন দিক দিয়ে যাচ্ছে কতটা অত্যাধুনিক হচ্ছে।

তাই আমি মনে করি স্মার্টফোনগুলোর এইসব ক্যামেরা দিয়ে ক্যামেরার বিকল্প হিসেবে কিছুটা কাজ করা যেতে পারে। তবে সবকিছুর কাজ করা সম্ভব হবে না। তবে কিছু ভারী ভিডিও রেকর্ডিং করতে অথবা পিকচার তুলতে এসব কাজের মধ্যে অনেকটা ক্যামেরা বিকল্প হিসেবে স্মার্টফোনের ক্যামেরা গুলো ব্যবহার করা যেতে পারে। বিশেষ করে আমি ৪৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা চেক করে দেখেছি যে অনেকটাই অত্যাধুনিক করেছে স্মার্টফোনের ক্যামেরা গুলোতস। তবে ৬৪ মেগাপিক্সেল ক্যামেরাটি এখনো আমি চেক করি নাই। আবার ১০৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা বাজারে লঞ্চ করতে শুরু করেছে । এসব ক্যামেরা দিয়ে আমি মনে করি যে ক্যামেরার বিকল্প হিসেবে স্মার্টফোনগুলো ক্যামেরা কাজে লাগাতে পসিবল হবে।

আপনি একবার চিন্তা করে দেখুন। স্মার্টফোন এর ক্যামেরা কতো উন্নত হত্র চলছে। আপনি ৪৮ মেগাপিক্সেল দিয়ে ছবি ক্যাপচার করছেন কিনা সঠিকভাবে বলতে পারছি না। তবে সেক্ষেত্রে হিসাব করে দেখো ৬৪ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা কি রকম হতে পারে। ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এর কথা নাই বললাম। আশাকরি আমার আর্টিকেল ভাল লেগেছে। আজকে এ পর্যন্তই। আপনি এই আর্টিকেল পরে বুঝতে পেরেছেন। যে কতটুকু ফোনের ক্যামেরা উন্নত হচ্ছে অতএব, আপনি ক্যামেরা বিকল্প হিসেবে স্মার্টফোনের ক্যামেরা গুলিকে কাজে লাগাতে পারেন আমার আর্টিকেলে যদি ভালো লাগে আশা করি লাইক এবং কমেন্ট করবেন আর পরবর্তী আর্টিকেল পাওয়ার জন্য আমাকে ভিজিট করবেন ধন্যবাদ সবাই ভালো থাকুন অনেক ভালো

Leave a Comment