৪৩তম বিসিএসের আবেদন ফরম পূরণ করার সঠিক পদ্ধতি

৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছিল গত বছরের ৩০ নভেম্বর।এবং আবেদন করার সর্বশেষ সময় হল ৩১ জানুয়ারি ২০২১।আর আপনি যদি বিসিএসে অংশ নিতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমেই আবেদন ফরম পুরন করতে হবে।কিন্তু অনেকেই আবেদন ফরম পুরন করতে যেয়েই ভুল করে ফলে ভুল তথ্য দেওয়ার কারনে তাঁদের আবেদন ফরম বাতিল হয়ে যায়।ফলাফল হিসাবে তাঁদের আর স্বপ্নের বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেওয়া হয়ে না।আজকের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমারা জানবো কিভাবে বিসিএস এর আবেদন ফরম সঠিকভাবে পুরন করতে হয়।তাহলে চলুন শুরু করা যাক-

আবেদন করার জন্য প্রথমেই আপনাকে bpsc.teletalk.com.bd এই  ওয়েবসাইটে যেতে হবে।এরপর ৪৩তম বিসিএস অনলাইন আবেদন এই লেখা ক্লিক করতে হবে।ক্লিক করার পড়ে জেনারেল ক্যাডার, টেকনিক্যাল/প্রফেশনাল ক্যাডার এবং বোথ ক্যাডার নামের তিনটি অপশন আপনার সামনে আসবে।এখন আপনাকে আপনার যোগ্যতা অনুসারে যেকোনো একটি অপশন সিলেক্ট করে দিতে হবে এবং সিলেক্ট করার পরেই বিসিএস ফরম এক ওপেন হয়ে যাবে।

বিসিএস ফরম-১ তিনটি ভাগে বিভক্ত।পার্ট এক এ আপনাকে আপনার ব্যাক্তিগত তথ্য দিতে হবে,পার্ট-২ এ আপনাকে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কিত তথ্য দিতে হবে এবং পার্ট-৩ এ আপনাকে ক্যাডার পছন্দের তথ্য সরবারহ করে ফরম পুরুন করা শুরু করতে হবে।

  • আবেদনকারীর নামঃ আপনার শিক্ষাগত সনদ পত্রে যেভাবে আপনার নাম লেখা আছে ঠিক একই ভাবে আপনার নাম বড় হাতে লিখে দিতে হবে।
  • মায়ের নামঃ আপনার শিক্ষাগত সনদ পত্রে যেভাবে আপনার মায়ের নাম লেখা আছে ঠিক একই ভাবে আপনার নাম বড় হাতে লিখে দিতে হবে।
  • বাবার নামঃ আপনার শিক্ষাগত সনদ পত্রে যেভাবে আপনার বাবার নাম লেখা আছে ঠিক একই ভাবে আপনার নাম বড় হাতে লিখে দিতে হবে।
  • জন্ম তারিখঃ আপনার শিক্ষাগত সনদ পত্রে যেভাবে আপনার জন্ম তারিখ আছে ঠিক একই ভাবে আপনার জন্ম তারিখ লিখে দিতে হবে।জন্ম তারিখ ভুল হলে আপনার আবেদন বাতিল বলে গণ্য হবে।
  • লিঙ্গঃ এখানে আপনি যদি পুরুষ হন তাহলে Male,মেয়ে হলে Female আর যদি আপনি অন্য কোন লিঙ্গের হয়ে থাকেন তাহলে Third Gender অপশন সিলেক্ট করে দিতে হবে।

আপনার বর্তমান চাকুরীর তথ্যঃ

আপনি বর্তমানে কোন চাকুরী করছেন কিনা অথবা আপনি বেকার কিনা তা এখানে আপনাকে বলে দিতে হবে।যেমন আপনি যদি রাজস্ব খাতের চাকুরীজীবী হয়ে থাকেন তাহলে Regular Basis under Revenue Budget,আপনি যদি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করেন তাহলে Autonomous or Semi-autonomous Organization,বেসরকারি চাকুরী করলে Private Organization এবং আপনি যদি বেকার হন তাহলে Not Employed সিলেক্ট করে দিতে হবে।আপনি যদি এখানে চাকুরীজীবী উল্লেখ করেন তাহলে আপনি যে প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে চাকুরী করছেন সেই প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের কাছে থেকে Non Objection Certificate (NOC) নিয়ে নিতে হবে,কেননা পরবর্তীতে এই Non Objection Certificate (NOC) আপনাকে পিএসসিতে জমা দিতে হবে।আর যদি বেকার উল্লেখ করেন তাহলে জমা দেওয়ার কোন প্রয়োজন পড়বে না।

আপনি কি উপজাতীয়/সংখ্যালঘু?

বিসিএস ফরম পুরন করার সময় এই অপশনে আপনাকে জিজ্ঞাসা করা হবে আপনি কি উপজাতীয়/সংখ্যালঘু?আপনার উত্তর যদি হ্যাঁ হয় তাহলে ইয়েস বাটন সিলেক্ট করতে হবে আর আপনার উত্তর যদি না হয় তাহলে নো বাটন সিলেক্ট করে দিতে হবে।

আপনি কি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান?

আপনি যদি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অথবা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কেউ হয়ে থাকেন তাহলে এই অপশনে আপনাকে সেইটি সিলেক্ট করে দিতে হবে।আপনি যদি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হয়ে থাকেন তাহলে Child of Freedom Fighter,আপনি যদি মুক্তিযোদ্ধার নাতি/নাতনী হয়ে থাকেন তাহলে Grand Child of Freedom Fighter,এবং আপনার যদি মুক্তিযোদ্ধা কোটা না থাকে তাহলে Non Freedom Fighter অপশন সিলেক্ট করে দিতে হবে।যদিও বর্তমানে বিসিএসে কোন কোটা সুবিধা নেই!তারপরও এই সুবিধা রাখা হয়েছে শুধু মাত্র বয়স নিরুপন করার জন্য।স্বাস্থ্য ক্যাডারের প্রার্থীরা এই কোটা সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

আপনার বৈবাহিক অবস্থা কি?

এরপরের অপশনে আপনার বৈবাহিক অবস্থা সম্পর্কে তথ্য চাওয়া হবে।আপনি যদি বিবাহিত হন তাহলে Married সিলেক্ট করে আপনার স্বামী/স্ত্রীর নাম লিখে দিতে হবে।বিবাহিত ছাড়া আপনি যা ই হন না কেন Single বাটন সিলেক্ট করে দিতে হবে।

আপনার জাতীয়তা কি?

এখন আপনার কাছে আপনার জাতীয়তা জানতে চাওয়া হবে।এটি বাংলাদেশি সিলেক্ট করা থাকবে।তাই এখানে কোন কিছু সিলেক্ট করতে হবে না।

আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বরঃ

আপনার যদি জাতীয় পরিচয় পত্র থাকে তাহলে Yes বাটনে চাপ দিয়ে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার দিয়ে দিতে হবে।আর যদি আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকে তাহলে No বাটন সিলেক্ট করে দিতে হবে এবং পরবর্তীতে জাতীয় পরিচয় পত্র যখন পাবেন তখন পিএসসিতে আবেদন করে জমা দিতে হবে।

আপনি কি প্রতিবন্ধী?

এই অপশনে আপনার কাছে জানতে চাওয়া হবে আপনি প্রতিবন্ধি কি না।আপনি যদি প্রতিবন্ধি না হয়ে থাকেন তাহলে None সিলেক্ট করতে হবে।আপনি যদি দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হন তাহলে Visually Disabled সিলেক্ট করতে হবে এবং আপনি যদি শারীরিক প্রতিবন্ধি হয়ে থাকেন তাহলে Physically Disabled সিলেক্ট করে দিতে হবে।

আপনার উচ্চতা কত?

এই অপশনে আপনাকে আপনার উচ্চতা লিখে দিতে হবে,উচ্চতা অবশ্যই আপনাকে সেন্টিমিটারে লিখতে হবে।আপনার উচ্চতা যদি সেন্টিমিটারে জানা না থাকে তাহলে আপনার উচ্চতা যত ইঞ্চি তাকে ২.৫৪ দ্বারা গুন করলেই আপনি কত সেন্টিমিটার তা পেয়ে যাবেন।

আপনার ওজন কত?

আপনার বর্তমান ওজন যেকোনো ওজন মাপার মেশিন দিয়ে মেপে কিলগ্রাম এককে লিখে দিতে হবে।

আপনার বুকের মাপ কত?

আপনার বর্তমান বুকের মাপ কত তা এই অপশনে লিখে দিতে হবে।সেনাবাহিনীতে যেভাবে মাপা হয় সেই পদ্ধতিতে বুকের মাপ নিয়ে লিখে দিতে হবে।

আপনার বর্তমান ঠিকানাঃ

আপনি বর্তমানে যে ঠিকানায় বসবাস করছেন সেই ঠিকানা উল্লেখ করুন।কেননা বিএসসি সংক্রান্ত সকল চিঠি পত্র এই ঠিকানায় যাবে এবং চূড়ান্ত ভাবে নিয়োগ পেলে এই ঠিকানায় পুলিশ ভেরিফিকেশন করা হবে।বর্তমান ঠিকানা লেখার সময় নিচের ফরম্যাট অনুসরন করুন।

প্রযত্নে, গ্রাম, জেলা, উপজেলা, ডাকঘর ও ডাকঘরের কোড (অবশ্যই আপনাকে বড় হাতের অক্ষরে লিখতে হবে)

আপনার স্থায়ী ঠিকানাঃ

আপনার স্থায়ী ঠিকানা লেখার সময় আপনার বর্তমান ঠিকানা লেখার পদ্ধতি অনুসরন করুন।চূড়ান্তভাবে নিয়োগ পাওয়ার পড়ে স্থায়ী ঠিকানাতেও পুলিশ ভেরিফিকেশন করা হবে।স্থায়ী ঠিকানা লেখার সময় নিচের ফরম্যাট অনুসরন করুন।

প্রযত্নে, গ্রাম, জেলা, উপজেলা, ডাকঘর ও ডাকঘরের কোড (অবশ্যই আপনাকে বড় হাতের অক্ষরে লিখতে হবে)

আপনার সাথে যোগাযোগ করার মোবাইল অথবা ফোন নাম্বারঃ

আপনি আপনার বিএসসি নিয়োগ বা পরীক্ষা সংক্রান্ত তথ্য যে নাম্বারে পেতে চান অথবা কোন সমস্যা হলে পিএসসি কর্তৃপক্ষ যেন খুব সহজে আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে সেই জন্য একটি মোবাইল নাম্বার দিতে হবে।এখানে চেষ্টা করবেন নিজের মোবাইল নাম্বার দিতে।Re-Type Mobile Number এখানে আপনার আগের দেওয়া মোবাইল নাম্বার পুনরায় লিখে দিতে হবে।

পরীক্ষাকেন্দ্র নির্বাচনঃ

আপনি যে কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে চান তা এখান থেকে সিলেক্ট করে দিতে হবে।আপনার বিসিএস নিয়োগ সংক্রান্ত সকল প্রকার পরীক্ষা এই কেন্দ্রেই অনুষ্ঠিত হবে।পরবর্তীতে এই কেন্দ্র পরিবর্তন করার কোন সুযোগ নাই।

প্রশ্নপত্রের ধরন নির্বাচনঃ

আপনি যদি প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ইংলিশ ভার্শনে দিতে ইচ্ছুক হন তাহলে এই অপশন সিলেক্ট করতে হবে অন্যথায় এখানে কোন কিছু সিলেক্ট করবেন না।কেননা একবার সিলেক্ট করলে আর ভার্সন পরিবর্তন করার কোন সুযোগ পাবেন না।এখন উপরের সকল তথ্য সঠিক দিয়েছেন এই মর্মে প্রত্যয়ন দিয়ে Next বাটনে ক্লিক করুন।এখন আপনার সামনে ফরম এর পার্ট-২ অপশন ওপেন হবে।

আমারা আগেই জেনেছি যে পার্ট-২ এ আমাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার সকল তথ্য প্রদান করতে হবে।

এসএসসি ও সমমানঃ

আপনার এসএসসি এবং সমমানের পরীক্ষার সনদ পত্র অনুসারে সকল তথ্য প্রদান করতে হবে।যেমনঃ পরীক্ষার নাম, বোর্ড, রোল, রেজাল্ট, গ্রুপ ও পাসের সাল সিলেক্ট করে দিতে হবে।

এইচএসসি ও সমমানঃ

আপনার এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষার সনদ পত্র অনুসারে সকল তথ্য প্রদান করতে হবে।যেমনঃ পরীক্ষার নাম, বোর্ড, রোল, রেজাল্ট, গ্রুপ ও পাসের সাল সিলেক্ট করে দিতে হবে।

এখানে,কেউ যদি এসএসসি এবং এইচএসসি এর ক্ষেত্রে যদি কেউ বোর্ড এবং গ্রুপের ঘরে  Others অপশন সিলেক্ট করে তাহলে লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের পর অবশ্যই তা পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে লিখিতভাবে জানাতে হবে।

স্নাতক:

আপনার সনদ অনুসারে সকল তথ্য প্রদান করতে হবে।যেমনঃ পরীক্ষার নাম, বিষয়, রেজাল্ট, পাসের সাল এবং কত বছর মেয়াদি কোর্স, সেটা লিখে দিতে হবে।যাঁরা অ্যাপিয়ার্ড হিসাবে আবেদন করবেন তাঁরা অবশ্যই পরীক্ষা শুরু ও শেষের তারিখ লিখে দিবেন।

২০১৫ সালে সেশনজটের কারণে আপনার পরীক্ষা ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত হলেও আপনার পাশের বছর  ২০১৫

স্নাতকোত্তরঃ

আপনি যদি স্নাতকোত্তর পাশ হন তাহলে এই অপশনে টিক দিবেন না হলে প্রয়োজন নেই।স্নাতকোত্তর পাশ হলে আপনার পরীক্ষার সনদ অনুসারে পরীক্ষার নাম, বিষয়, রেজাল্ট, পাসের সাল এবং কত বছর মেয়াদি কোর্স এসব তথ্য লিখে দিতে হবে।

এখানে,কেউ যদি স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর এর ক্ষেত্রে যদি কেউ বোর্ড এবং গ্রুপের ঘরে  Others অপশন সিলেক্ট করে তাহলে লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের পর অবশ্যই তা পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে লিখিতভাবে জানাতে হবে।

Additional Qualification for Teachers Training College:

এই অপশন আপনার জন্য প্রযোজ্য হলে টিক মার্ক দিন এবং এরপর আপনার পাশের সনদ অনুসারে পরীক্ষার নাম, প্রতিষ্ঠানের নাম, রেজাল্ট ও পাসের সাল লিখে দিন।

Post Related Subjects:

এই অপশন শুধুমাত্র টেকনিক্যাল/প্রফেশনাল ও বোথ ক্যাডারদের সিলেক্ট করতে হবে জেনারেল ক্যাডারদের জন্য এই অপশন প্রযোজ্য নয়।এখানে আপনার সাবজেক্ট সিলেক্ট করে দিতে হবে।

এখন উপরের সকল তথ্য সঠিক দিয়েছেন এই মর্মে প্রত্যয়ন দিয়ে Next বাটনে ক্লিক করুন।এখন আপনার সামনে ফরম এর পার্ট-৩ অপশন ওপেন হবে।আমারা আগেই জেনেছি যে পার্ট-৩ এ আমাদের Cadre Option তথ্য প্রদান করতে হবে।