এসএসএল কি?আমরা কেন আমাদের ওয়েবসাইটে এসএসএল ব্যাবহার করব?

এসএসএল হল একটি ওয়েবসাইট তথা কোন নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট এর নিরাপত্তা জনিত বিষয়টি ব্যাবহারকারীর নিকট প্রকাশ করে।ওয়েব ডেভলপার অথবা ওয়েবসাইট মালিকদের এই বেপারে বিস্তর জানাসুনা থাক্লেও সাধারন ব্যাবহারকারিরা এই ব্যাপারে কিছুই জানে না।আপনি যদি কোন ওয়েবসাইটে যখন আপনার ক্রেডিট কার্ড ব্যাবহার করে কোন অর্থ পরিশোধ করতে যান তখন সেই ওয়েবসাইটে এসএসএল থাকা কতটা জরুরি তা এই পোস্ট সম্পূর্ণ পড়া শেষ করার পর অনুধাবন করতে পারবেন।

আপনি যদি অনেক অভিজ্ঞ অথবা অনভিজ্ঞ ইন্টারনেট ব্যাবহারকারী হন না কেন এসএসএল সম্পর্কে আপনার যদি কোন ধারনা না থাকে এবং আপনি যদি এসএসএল নেই এমন কোন ওয়েবসাইটে আপনার ক্রেডিট কার্ড ব্যাবহার করে লেনদেন করে থাকেন তাহলে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট/ক্রেডিট কার্ড এর আক্সেস অনলাইন বাটপারদের হাতে চলে যাওয়ার প্রবল সম্ভবনা রয়েছে।সুতরাং এসএসএল সম্পর্কে আমাদের সকলের জানা থাকা অতীব জরুরি।

এসএসএল হল, সিকিউর সকেটস লেয়ার এর সংখিপ্ত রুপ।এই লেয়ারের মধ্য দিয়ে যখন কোন তথ্য আদান প্রদান করা হিয় তখন তা খুব সহজেই এনক্রিপ্টেড হয়ে যায়।এসএসএল সার্টিফিকেটকে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও বলা হয়।এটি ওয়েব সার্ভার এবং ওয়েব ব্রাউজার এর ভেতর একটি সুরক্ষিত টানেল তৈরি করে।ফলে এই দুই এর ভেতর তথ্য গুলো খুবই সুরক্ষার সাথে আদান প্রদান হয়।

আমরা উপরে জেনেছি যে এসএসএল এর মধ্য দিয়ে তথ্য প্রেরন অথবা গ্রহন করা হলে তা এনক্রিপ্টেড হয়ে যায়।আর এসএসএল এর এই এনক্রিপশন আপনার ক্রেডিট কার্ড,নাম,ঠিকানা এবং আপনার একান্ত বেক্তিগত তথ্য গুলো চুরি হওয়া থেকে রোধ করে।এসএসএল কেন ব্যাবহার করা হয় এটা আগে জেনে নেওয়া যাক।আমারা যখন আমাদের কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যাবহার করে কোন ওয়েবসাইট ভিসিট করি অথবা ব্যাবহার করি তখন আমাদের কম্পিউটার কীভাবে ওয়েব সার্ভার এর সাথে যোগাযোগ করে এটা আগে জেনে নেওয়া যাক।আমাদের কম্পিউটারে আমরা ইন্টারনেট ব্রাউজার চালু করি এবং কোন একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে প্রবেশ করি।এর পর আমাদের এই অনুরধ আমাদের আইএসপি এর নিকটে যায় এবং আমাদের আইএসপি আমাদের অনুরধ ওয়েব সার্ভারে পাঠায়।একই ভাবে সেই ওয়েব সার্ভার প্রথমে আমাদের আইএসপি কে তথ্য দেই এবং আমাদের আইএসপি সেই তথ্য আমাদের ইন্টারনেট ব্রাউজারে পেরন করে এবং আমরা এই তথ্য আমাদের কম্পিউটারে দেখতে পারি।এখন এখানে দেখতে হবে আমাদের পাঠানো তথ্য ওয়েব সার্ভারে যাওয়ার আগে পর্যন্ত কয় জন দেখতে পেল?আর যারা দেখতে পারবে তাঁরা যদি আমাদের ক্রেডিট কার্ড অথবা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর তথ্য দেখে ফেলে তাহলে আমাদের বিরাট ক্ষতি হবার সম্ভবনা থাকে।আর এই ক্ষতি এড়াতেই এসএসএল ব্যাবহার করা হয়।কারন এসএসএল দিয়ে তথ্য পাঠালে তা এনক্রিপশন হয়ে যায় যা কোন মানুষের পড়ার উপযোগী থাকে না।আর পড়তে না পারার কারনে আমাদের তথ্যগুলো কেউ চুরি করতে পারে না।

এসএসএল সার্টিফিকেট একটি ওয়েবসাইটে কীভাবে কাজ করে?আপনি বা আমি যখন কোন ওয়েবসাইট ভিসিট করি তখন প্রথমে আমাদের ইন্টারনেট ব্রাউজার প্রথমে ওয়েবসাইট এর সার্টিফিকেট যাচায় করে যে এটি বিসসস্থ কি না?এবং এই কাজ কোন অনলাইনের বাটপার করছে কিনা।ধরেন আপনার পাসওয়ার্ড হল “beni54920” আপনি যখন কোন এসএসএল যুক্ত ওয়েবসাইটে এই পাসওয়ার্ড প্রবেশ করান তখন এসএসএল এই পাসওয়ার্ড কে এনক্রিপ্টে করে এবং এই এনক্রিপ্টেড করা পাসওয়ার্ড বা তথ্য গুলো দেখতে অনেক টা এই রকম alieh737$%#*&n8nsao এটা কোন মানুষের পক্ষে পড়া সম্ভব না।সুধু মাত্র ওয়েব সার্ভার এই এনক্রিপ্টেড করা তথ্য পড়তে পারে।আবার ওয়েব সার্ভার ও পড়তে পারবে না যদি না সেই সার্ভার এর কাছে উক্ত ওয়েবসাইট এর পাবলিক বা প্রাইভেট ডাটা কি বা চাবি না থাকে।এসএসএল যুক্ত ওয়েবসাইট এর নামের শুরুতে https:// থাকে এবং এসএসএল ছাড়া ওয়েবসাইটে http:// থাকে।উপরে বর্ণিত পাসওয়ার্ড এর মতই এসএসএল আমাদের সকল তথ্য যেমনঃ ইউজার নাম,পাসওয়ার্ড,ক্রেডিট কার্ড এর তথ্য,আমাদের ঠিকানা ইত্যাদি সুরক্ষিত ভাবে সার্ভারে প্রেরন করে।ফলে আমাদের কোন তথ্য কেউ কখনও চুরি করতে পারে না।

Leave a Comment