ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার কি? টাওয়ার সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি ভালই আছেন। ইলেকট্রিক্যাল সিরিজের আমার অনেকগুলো আর্টিকেল লিখা হয়েছে এই ওয়েবসাইটে। গতকালকে আমি লিখেছি ইলেকট্রিক্যাল পোল নিয়ে। আজকে আমি আলোচনা করতে চলেছি ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার নিয়ে। ওয়েবসাইটের অনেক পাঠক ইতিমধ্যে ইলেকট্রিক্যাল নিয়ে অনেক কিছুই পড়েছে। তাই চিন্তা করলাম তাদের মাঝে আরেকটি আর্টিকেল নিয়ে আসা যাক। তাই ভাবলাম আজকে আমি ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার নিয়ে লিখে ফেলি। তো বন্ধুরা কথা না বাড়িয়ে আমার আর্টিকেলটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

যেহেতু আজকের আর্টিকেলটি আমাদের ইলেকট্রিক্যাল নিয়ে। তাই সবার আগে আমাদের জানা উচিত এই টাওয়ারটি কি। ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার হল। ওভারহেড লাইনের ভূমি থেকে উপরে ধরে রাখার একপ্রকার সাপোর্ট হচ্ছে টাওয়ার। অতি উচ্চ চাপ বা হাইভোল্টেজ লাইনের মধ্যে টাওয়ারে ব্যবহার করা হয়। গ্যালভানাইজড করা ইস্পাতের অ্যাঙ্গেল বা চ্যানেল নাট-বোল্ট দিয়ে আটকে টাওয়ার তৈরি করা হয়। সাধারণত 66kv বা তার চেয়ে বেশী ভোল্টের সকল লাইনে টাওয়ার ব্যবহৃত করা হয়। বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে 11kv ও 33kv লাইন এর মধ্যেও এই ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাছাড়া যে ছোট ছোট লাইনগুলো আছে সেখানে ইলেকট্রিক্যাল পোল ব্যবহার করা হয়। আমি ইলেকট্রিক্যাল পোল নিয়ে গত সিরিজে আর্টিকেলটি আমি লিখে ফেলেছি। আপনারা যদি এটি নিয়ে জানতে চান তাহলে আগের আর্টিকেলটি পড়তে পারেন।

এই ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার সাধারণত হাই ভোল্টেজের ক্ষেত্রেই বেশি ব্যবহৃত হয়। মনে করেন শহর শহর অঞ্চলে অনেক লাইন একসাথে টানা হয় এবং সে লাইনের ভোল্টেজ অনেক বেশি পরিমাণে থাকে। যার কারণে সাধারণত পোল দিয়ে বা থামবা দিয়ে কাজগুলা কমপ্লিট করা যায় না। মানে অতি বেশি লাইন এবং অনেক বেশি ভোল্টেজের লাইন পোল দিয়ে করা যায় না। যার জন্য এই ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ারগুলো ব্যবহৃত করা হয়। আশা করি এই ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ারগুলো কি আমরা বুঝতে পেরেছি। মাঝে মাঝে কিছু বাড়ি লাইন একসাথে হলেও গ্রাম অঞ্চলের দিকে দেখা গেছে অনেক টাওয়ার বসানো হয়।

আশা করি আমার পোস্ট বিস্তারিত বুঝতে পেরেছেন। আর ইলেকট্রিক্যাল টাওয়ার এবং পোল সম্পর্কে যদি আরো কিছু জানা থাকে। তাহলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন আমি আপনাদের সঠিক উত্তর দিয়ে সাহায্য করার জন্য চেষ্টা করব।আর আমার এই আর্টিকেল যদি ভালো লাগে তাহলে আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন।

Leave a Comment