যে কারনে আপনার ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা উচিত

আপনি যদি একজন নিয়মিত ইন্টারনেট বেবহারকারি হয়ে থাকেন এবং টেক ব্লগ এর একজন নিয়মিত ভিসিটর হয়ে থাকেন,তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিং শব্দ অনেক বার দেখেছেন আর পরেছেন নিশ্চয়?প্রযুক্তির কল্যাণে আমাদের সামনে এমন সব কাজ এসে উপস্থিত হয়েছে যা আগে কল্পনাও করা যেত না।আমাদের মধ্য অনেকেই ই-কমার্স আর ডিজিটাল মার্কেটিং কে একই ভেবে থাকেন।আদতে ই-কমার্স আর ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পূর্ণ ভিন্ন জিনিস।আজকে আমরা জানবো ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং কেন আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং শিখব?

আপনি যখন অনলাইন কে ব্যাবহার করে কোন প্রোডাক্ট কেনা বেচা করবেন তখন তাঁকে বলা হবে ই-কমার্স।অপরদিকে ডিজিটাল মার্কেটিং হচ্ছে ই-কমার্স এর একটি অংশ যার মাধ্যমে আপনার ই-কমার্স বিজনেসের খবর গুলো আপনার ক্রেতার কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।আর আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে কীভাবে আপনার প্রোডাক্ট এর সঠিক মার্কেটিং করে মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়।এখানে বলে রাখা ভালো ডিজিটাল মার্কেটিং সুধুমাত্র ই-কমার্স এর মধ্যই সিমাবদ্ধ না।ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভেতর আরও অন্তভুক্ত রয়েছেঃ ওয়েব ডেভলেপমেন্ট,মার্কেটিং অটোমেশন,ই-কমার্স,ইমেইল মার্কেটিং,মোবাইল মার্কেটিং,সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO),সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (SEM),ভিডিও ও অডিও প্রোডাকশন ইত্যাদি।

উপরের এই কাজ গুলো ছারাও আরও অনেক কাজ রয়েছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর।আর এই কাজ শিখে খুব সহজেই (আসলেই সহজ ব্যাপার না) আপনার ক্যারিয়ার গড়তে পারেন একজন সফল ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে।ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম এর এক জরিপে দেখা গেছে ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে কাজ করার দিকে প্রথম অবস্থানে আছে ইন্ডিয়া,দ্বিতীয় অবস্থানে আছে আমাদের বাংলাদশ এবং তিন নাম্বারে আছে ইউএসএ।এখন আমরা জানবো কেন আমরা ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে নিজেকে তৈরি করব?

ডিজিটাল মার্কেটিং এর রয়েছে বিশ্বব্যাপী অত্তাধিক চাহিদা।এক জরিপের মাধ্যমে জানা গেছে আগামী ২০২০ সালের ভেতর সুধু মাত্র আমেরিকায় ২০ লাখ ডিজিটাল মার্কেটার এর প্রয়োজন হবে।এছারা অন্যান্য দেশেও রয়েছে মার্কেটার এর ব্যাপক চাহিদা।তাই আপনি যদি একজন ছাত্র হন অথবা বেকার অথবা যেকোনো পেশার তাহলে আপনি এখনই ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা শুরু করতে পারেন এবং পেতে পারেন এক উজ্জ্বল ক্যারিয়ার।

আপনার কি কারও অধিনে কাজ করতে ভালো লাগে না?আপনি কি এই মুহূর্তে চাকুরীজীবী?আপনার সারা বছর একই কাজ করতে ভালো লাগে না?একই রকম কাজ করতে করতে হাঁপিয়ে উঠেছেন?তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিং হতে পারে আপনার জন্য সময়ের সব চাইতে ভালো পেশা।কারন আপনি এখানে চাইলেই নিজেকে যেকোনো কাজে নিয়োজিত করতে পারেন।আপনার পছন্দ মত কাজ কে আপনি চয়েজ করে নিতে পারেন।তাই আপনি যদি একজন স্বাধীনচেতা মানুষ হয়ে থাকেন তাহলে ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে নিজের ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন।

আপনি হয়ত এখন ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা শুরু করলেন।প্রথমে অল্প আয় হলেও আপনি যত অভিজ্ঞতা অর্জন করেন আপনার আয় তত দ্রুত বাড়তে থাকে।তাই আপনি যদি অল্প সময়ে আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী হতে চান তাহলে আপনি নিজেকে মার্কেটার হিসাবে তৈরি করে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

আপনি যদি এই মুহূর্তে ছাত্র হয়ে থাকেন তাহলে আপনি চাইলেই কোন চাকুরি করতে পারবেন না।কারন আপনি যখন কোন কোম্পানিতে চাকুরির জন্য যাবেন,তখন সেই কোম্পানি আপনার সার্টিফিকেট দেখতে চাইবে।যা আপনার জন্য এই মুহূর্তে দেখানো সম্ভব না।কারন আপনার লেখা পড়া এখন শেষ হয় নি।কিন্তু আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখেন এবং ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে কাজ শুরু করতে চান তাহলে আপনার সার্টিফিকেট এর কোন প্রয়োজন নেই।কারন এখানে অভিজ্ঞতাই শেষ কথা।

আপনি যখন ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে হিসাবে ক্যারিয়ার শুরু করেন তখন আপনি মানুষের চাহিদা সম্পর্কে জানেন।আপনি জানতে পারেন মানুষের কোন প্রোডাক্ট এর প্রতি চাহিদা কেমন।সুতরাং যখন কোন কোম্পানি আপনাকে হায়ার করে তাদের প্রোডাক্ট নির্বাচন করার জন্য আপনি খুব সহজেই বলে দিতে পারেন মানুষের কোন প্রোডাক্ট এর প্রতি চাহিদা কেমন।আর আপনার যেহেতু এই সম্পর্কে বাস্তব অভিজ্ঞতা আছে তাই সেই কোম্পানির লোকসান এর কোন ভয় নাই।সুতরাং পরের বার উক্ত কোম্পানি আপ্নাকেই হায়ার করবে তাদের প্রোডাক্ট নির্বাচন করার জন্য।আর এই কোম্পানি থেকে আপনি ভালো পরিমান অর্থ আয় করার সুযোগ পাবেন।এই দিক চিন্তা করে হলেও আপনার ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা উচিত।

আপনি যখন ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে কাজ করা শুরু করেন আপনার তখন এক এক সময় এক এক জন মানুষের সাথে কাজ করতে হয়।এবং আপনার জানা শুনার পরিধি বাড়তে থাকে।আর আপনার যত অপর বাক্তি অথবা দেশ সম্পর্কে জানবো একজন ডিজিটাল মার্কেটার এর জন্য এই তথ্য গুলো মার্কেটিং এর জন্য তত কাজে লাগবে আমাদের।সুতরাং এই দিক চিন্তা করে হলেও আমাদের ডিজিটাল মার্কেটার হিসাবে কাজ করা উচিত।

Leave a Comment