২০২০ সালের সেরা কয়েকটি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন। যা আপনার ব্যবহার করা অত্যান্ত দরকারি

আসাকরি সবাই ভালই আছেন। নতুন বছরে নতুনভাবে সুন্দরময় হয়ে সবার দিন কাটতে থাকুক এটাই সব সময় কামনা করি। তো নতুন বছর উপলক্ষে সবার উদ্দেশ্য করে আমি একটি আর্টিকেল লিখতে চলেছি। যেহেতু আমরা সবাই এখানকার সময়ে ওয়ার্ডপ্রেস দ্ধারা ওয়েবসাইট করে থাকি। তাই আজকে আমি ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু জনপ্রিয়তা প্লাগিন নিয়ে আলোচনা করব। তাছারা আজকের এই প্লাগইন প্রায় একটা ওয়েবসাইট ভালভাবে মেইনটেইন করতে গেলে অনেক বেশি প্রয়োজন হবেই। তাই সেইসব প্লাগইন একত্রিত করে একটা রেভিউ নিয়ে আসলাম। তো আজকের এই রিভিউটা সবার কাজে লাগবে আমি মনে করি।

আমরা সবাই জানি যে ওয়ার্ডপ্রেস দ্ধারা ওয়েবসাইট তৈরি করলে প্লাগইন এর ব্যবহার অপরিসীম। ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট কে স্মার্ট করার জন্য আপনি অনেক ফ্রী থেকে পেইড প্লাগইন ওয়ার্ডপ্রেস অরগ থেকে পাবেন। এবং আপনার ওয়েবসাইট কি ধরনের হবে সেই অনুযায়ী আপনি সেই প্লাগইন ব্যবহার করে কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন। এতে কনো প্রগ্রামিং জানা লাগবে না। ও আপনি চাইলেই সেই ডিজাইন আবার পাল্টিয়ে অন্যরকম করতে পারবেন। আমাদের ওয়েবসাইট কে স্মার্ট করার জন্য কিছু প্লাগিন ব্যবহার করতে হবেই যেমন। এসইও প্লাগইন, অপ্টিমাইজ প্লাগইন, এরম আর কিছু প্লাগিন যা ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট করতে গেলে একান্ত দরকারী। তবে এইসব প্লাগইন আপনি চাইলে একদম ফ্রীতে ব্যবহার করতে পারবেন। এক কথায় আপনার যা যা প্লাগইন দরকার সেই সব প্লাগিন ওয়ার্ডপ্রেস এর মধ্যে মজুদ রয়েছে। তাও আবার এটা একদম ফ্রীতে ব্যবহার করতে পারবেন। এটার জন্য আমাদের খরচ এবং আলাদাভাবে কোনো বেজাল পোহাতে হচ্ছে না।

তবে আপনি একটি কাজ করার জন্য কেবল মাত্র একটি প্লাগইন ই পাবেন না। এখানে অনেক রকমের সিমিলার প্লাগইন পাবেন। সেখান থেকে আপনারফ যেটি ভাল লাগবে এবং অনেক ভাল মনে হবে। সেই প্লাগিন আপনি ইন্সটল করে ব্যবহার করতে পারবেন। এতে কোনো বাধা নেই। অতএব এটি একটি স্বাধীন জিনিস। আপনি চাইলেও পরবর্তী সময়ে পরিবর্তন করে আরেকটা ব্যবহার করতে পারবেন।

তাই বন্ধুরা আজকে আমি আপনাদের জন্যে সেরা কয়েকটি প্লাগিন নিয়ে আলোচনা করব। যা আপনারফ ওয়ার্ডপ্রেস সম্পরকে জানতে বা বুজতে আরো সক্ষম লাভ করতে সফল হবেন। আজকের আর্টিকেল এর মধ্যে আমি বেশ কয়েকটি প্লাগিন নিয়ে আলোচনা করব। যে প্লাগইন আমাদের সবসময় কাজে লাগবেই। এবং এগুলির ব্যবহার আগে থেকেই অনেক বেশি পরিমান এর, আর সামনেও এই প্লাগিইন গুলির ব্যাবহার অনেক বেড়ে যাবে আশাকরা যায়। তাকি আমি আপনাদের জন্য এই প্লাগিন রিভিউ করতে চাচ্ছি। আসাকরি এই প্লাগিনগুলির কাজ সম্পর্কে আরো বেশি কিছু ধারনা অর্জন করতে সক্ষম হবেন। আমি সেই প্লাগইনগুলি নিয়ে এক লিস্ট তৈরি করে ফেলেছি। এই প্লাগইন হচ্ছেঃ ওয়ার্ডপ্রেস এসইও প্লাগইনস,ওয়ার্ডপ্রেস সুরক্ষা প্লাগইন, ওয়ার্ডপ্রেস অপ্টিমাইজেশন প্লাগইন,ওয়ার্ডপ্রেস সোশ্যাল মিডিয়া প্লাগইনস,অপ্টিমাইজেশন এবং পারফরম্যান্সের জন্য ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন, ওয়ার্ডপ্রেস পুনঃনির্দেশ প্লাগইন, ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারী নিবন্ধকরণ প্লাগইন,, ওয়ার্ডপ্রেস ব্যাকআপ প্লাগইন, ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারী নিবন্ধকরণ প্লাগইন, ওয়ার্ডপ্রেস ফর্ম বিল্ডার প্লাগইনস, ওয়ার্ডপ্রেস ফর্ম বিল্ডার প্লাগইনস, ওয়ার্ডপ্রেস ফর্ম বিল্ডার প্লাগইনস, ওয়ার্ডপ্রেস ইকমার্স প্লাগইনস, ওয়ার্ডপ্রেস ইমেল এবং নিউজলেটার প্লাগইন,

তাছারা আরো অনেক জনপ্রিয় প্লাগইন রয়েছে। যা আপনারা আরো সহজভাবে ব্যবহার করতে পারবেন। এই সব প্লাগইন এর ব্যবহার হয়তো আমরা অনেকে জানি। আবার আমরা যারা নতুন তারা হয়তোবা জানিনা। তাই এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে জানব। তো আসুন কথা না বাড়িয়ে এগুলি সম্পর্কে জেনে নেই।

সুরক্ষার জন্য সেরা ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইনস:

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট সুরক্ষা রাখার জন্য আমরা বিভিন্ন প্লাগিন আমাদের ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটে ব্যবহার করে থাকি। কেননা ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট কে সুরক্ষিত রাখা একান্ত প্রয়োজন। কারণ একটি ওয়েবসাইটের মধ্যে ইউজারদের তথ্য এবং সাইটের অনেক ইনফরমেশন থাকে। যদি সেগুলি সুরক্ষিতভাবে রাখা যায় তাহলে ওর একটা বড় বিপদে পড়ে যেতে পারেন। তাই ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটে সিকিউরিটি প্লাগিন এর কোন বিকল্প নেই।

তাই আজকের আর্টিকেল আমি মূলত ওয়ার্ডপ্রেসের একটি সেরা সুরক্ষা প্লাগিন নিয়ে আলোচনা করব। এই প্লাগিনের নাম হয়তো আপনারা অনেকেই শুনেছেন অথবা অনেকে ব্যবহার করে আসছেন। কিন্তু একলা কিনে ব্যবহার এবং কি কি করা যায় এগুলো অনেকেই জানিনা। তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমি এই প্লাগিনের কিছু ব্যবহার এবং এই প্লাগিনের মাধ্যমে কি কি করা যায় সকল বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। এই প্লাগিন এর নাম হচ্ছে wordfence প্লাগইন। আপনি অবশ্যই চান না যে আমার ওয়েবসাইট এর সকল তথ্য অন্য কারো কাছে চলে যাক। আপনার ওয়েবসাইটে সবসময় সিক্রেট ভাবে রাখতে চান। কেননা এটা সবাই চাইবে। আমি আগেই বলেছি একটি ওয়েবসাইটে সকল ইউজারদের পার্সোনাল তথ্য ইমেইল এবং ক্রেডিট কার্ড ডেবিট কার্ড অ্যাড থাকতে পারে। আর সেগুলি সুরক্ষিত রাখা একটি ওয়েবসাইটের কাজ।

আমি ইতিমধ্যে জানি যে একটি ওয়েবসাইটে প্রতিনিয়ত প্রায় হাজার হাজার বোট প্রবেশ করে থাকে। কিন্তু আমরা অবশ্যই জানি যে এই বুট গুলো কোন না কোন সময় সাইটের বিরাট ক্ষতি করে ফেলতে পারে। এবং আপনার ওয়েবসাইটটিকে এবং ওয়েবসাইটে সকল ইউজারদের তথ্য ধ্বংস করে দিতে পারে। এর জন্য অবশ্যই আপনার এই বুট যথারীতি ভাবে বন্ধ করা দরকার। যেন আপনার ওয়েবসাইট এর ভেতর প্রবেশ না করে কোন ক্ষতি করতে পারে।

ওয়াডপ্রেস এর মধ্যে আপনি অনেক সুরক্ষা প্লাগিন পেয়ে যাবেন। কিন্তু এর মধ্যে অন্য ভিন্ন ধরনের লাগানো রয়েছে। অনেক সুরক্ষা প্লাগইন সেখানে মজুদ রয়েছে। কিন্তু সেখান থেকে আপনার জন্য একটি চয়েস করে নিতে হবে। কিন্তু আজকে আমি সবগুলা প্লাগিন চার্জ করে আপনাদের মধ্যে একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে এসেছি। আপনারা হয়তো প্রথম অবস্থায় কোনটি ভাল এবং কোনটি কিরকম সেটি খুব ভালোভাবে চয়েজ করতে পারবেন না। সেজন্য আজকে আমি সব গুলোর মধ্যে একটি প্লাগইন নিয়ে আলোচনা করব। মানে সব গুলোর মধ্য থেকে একটি প্লাগিন আমি ইতিমধ্যে পছন্দ করে ফেলেছি। আর সে প্লাগিনটির নাম হচ্ছে ওয়ার্ডফেন্স সুরক্ষা প্লাগইন। যা আমরা হয়তো অনেকেই চিনতে পারছিনা । আবার অনেকেই আমরা এই ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন টি সাইটের সুরক্ষা কারী হিসেবে ব্যবহার করে ফেলেছি। যারা ব্যবহার করেছেন তাদের আমি ও অভিনন্দন জানাই। সুরক্ষা প্লাগিনের জন্য এটি অনেক ভালো একটা প্লাগইন। যেটা আমিও ব্যবহার করে থাকি।

তো এই প্লাগিন এর মাধ্যমে কি কি কাজ সক্ষম করা যায় সেটি নিয়ে এখন আলোচনা করব। এই প্লাগইন দ্বারা প্রথম অবস্থায় আপনি সাইটে প্রবেশ করা বট গুলি বন্ধ করতে পারবেন। আবার কিছু কিছু বট আছে বিভিন্ন ভাবে আপনার ওয়েবসাইট কে অ্যাক্সেস করতে চায়। কিন্তু একটা প্লাগিন ব্যবহার করলে বুট গুলিকে অ্যাক্সেস করতে দেবেনা। আবার কেউ যদি আপনার ওয়েবসাইটকে হ্যাক করতে চায়। সে ক্ষেত্রে এই প্লাগিন আপনাকে যথেষ্ট সাহায্য করবে হ্যাকিং থেকে আপনার ওয়েবসাইট কে রক্ষা করতে। তাছাড়া ভিজিটর স্ট্যাটিক এবং বিভিন্ন দেশ থেকে বট গুলি বন্ধ করে দেয়। যেগুলো ব্লক করে সেগুলো আর আপনার সাইটকে ব্যবহার করতে পারবে না।

তারপর আরো অনেক ধরনের কাজ আছে যা আপনি এই ওয়ার্ডফেন্স সুরক্ষা প্লাগিন দ্বারা সক্ষম করতে পারবেন। তাই আমি প্লাগইনটি সেরা মনে করে ফেলেছি। এমআই প্লাগিন এর মত সুবিধা কোন প্লাগিন নিয়ে মনে হয় না যে দিতে পারতেছে। তাই আপনি নিঃসন্দেহে এ প্লাগইন ব্যবহার করতে পারেন। আরো ভালো হয় যদি আপনি এই প্লাগিনের পেইড ভার্সন তা ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে আরো বেশি সুযোগ সুবিধা দিবে এই প্লাগিন। তাই পরিশেষে আমি এই প্লাগইনটি কে ব্যবহার করার জন্যই বলবো।

আকিসমেট ওয়ার্ডপ্রেস-প্লাগইন

এই প্লাগিনের নাম কি হয়তো আমরা সবাই জানি। কেননা আমরা যখন ওয়ার্ডপ্রেস নতুন করে ইন্সটল করি তখন এই প্লাগইনটি সাধারণভাবেই সেট করে দেয়। আপনি সহজে বুঝতে পারছেন যে এই প্লাগইনটি সাধারণভাবে সেট করে দেয় তাহলে এই প্লাগিন টি ওয়েবসাইটের জন্য কতটা প্রয়োজনীয়তা হতে পারে? তা হয়তো আমার এই বিষয়ে আর্টিকেল লেখা শেষ হলে জানতে পারবেন। আমি নিজেও এই প্লাগিন ব্যবহার করে এসেছি। প্লাগিনের মাধ্যমে আপনি অনেক কাজ সফল করতে পারবেন। আমি ওয়ার্ডপ্রেস একটি স্মার্ট ড্যাশবোর্ড পাবেন যা কিছু কাজের জন্য আপনার সবচেয়ে ভালো হবে।

এই প্লাগিন দ্বারা আপনি আপনার ওয়েবসাইটের মন্তব্যের একটি লিস্ট দেখতে পাবেন। এবং স্পাম রক্ষাকারীর জন্য এই প্লাগিনটি একদম সেরা। এ প্লাগিনের মাধ্যমে আপনি স্পাম করা কমেন্ট গুলো সহজেই লিস্ট আকারে দেখতে পাবেন। এবং আপনার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা স্পেলিং গুলো আপনি সহজে সরাতে পারবেন। এবং সন্দেহজনক লিংক গুলিকে ডিলিট করে দিতে পারবেন। এবং প্লাগিন দ্বারা আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর স্ট্যাটিক গুলি সহজে দেখতে পাবেন।

যদি প্লাগইনটি আপনি শুধুমাত্র আপনার পার্সোনাল ওয়েবসাইট হলে ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারবেন। আবার যদি আপনি এর পেইড ভার্সন এর ব্যবহার করার পরিকল্পনা করেন তাহলে সেটা আরো ভালো ব্যাপার। কেননা এই প্লাগিনের প্লেট-বাসন আপনি আরো অনেক অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধা পাবেন। তবে আপনি যদি পেইড ভার্সন টি ব্যবহার করতে পারেন সে ক্ষেত্রে আমি এটা আরো ভালো বলবো।

এসইও এর জন্য সেরা ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন

এসইও বলতে আমরা যেটা জানি সেটা হচ্ছে (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন) কিন্তু এই এসইও প্লাগিন দ্বারা ওয়ার্ডপ্রেসে এগুলি আরো অনেক সহজে এবং সুন্দর ভাবে করা যায়। যা হয়তো অন্য কোন প্লাটফর্মে সম্ভব নয়। আপনি অবশ্যই জানেন যে আপনার কোন একটি আর্টিকেল যদি গুগলের প্রথম পাতায় আসে। তাহলে সেটি থেকে আপনি অনেক বেশি পরিমাণে ভিজিটর পাবেন। এটি কেবলমাত্র ভালোভাবে এস করার ফলে এটি আপনি আশা করতে পারেন। এর জন্য আপনি কয়েকটি প্লাগিন পাবেন ওয়ার্ডপ্রেসে। কিন্তু আপনাকে ব্যবহার করতে হবে মাত্র একটি। এদের মধ্যে কিছু জনপ্রিয় প্লাগিন হচ্ছে ইয়োস্ট এসইও প্লাগিন, ব্যাংক ম্যাথ প্লাগিন, এবং অল ইন ওয়ান প্লাগিন, কিন্তু এই তিনটে প্লাগিনের মধ্যে আপনাকে একটি প্লাগিন ব্যবহার করতে হবে। এই তিনটি প্লাগিন এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি প্লাগিন হচ্ছে ইয়োস্ট এসইও প্লাগিন।

কিন্তু আমি একটা সাধারন ইউজার হিসেবে রাঙ্কম্যাথ এসইও প্লাগিন ব্যবহার করে আসছি। কেননা জাস্ট প্লাগিন যে ফিচারগুলোঃ পেইড ভার্সন এ রেখেছে। সেগুলি আমি রাঙ্কম্যাথ প্লাগিন এর মধ্যে সম্পূর্ণ ফ্রিতে পাচ্ছি। তাই একটি সাধারণ ব্যবহারকারী হিসেবে আমার জন্য এই প্লাগিন বেস্ট। আবার আমি এটি ব্যবহার করে অনেক উন্নত ফলাফলগুলি পেতে সক্ষম হয়েছি। যার জন্য আমি আপনাদের জন্য রিকমেন্ডেড করবো প্লাগিনটি ব্যবহার করার জন্য। এ প্লাগইন গুলোতে আপনি অনেক ফিচার পাবেন যেমন সাইটম্যাপ তৈরি করা। Robot.txt তৈরি করা, এবং দেস্ক্রিপশন, ফোকাস কিওয়ার্ড, এবং ইন্ডেক্স, এগুলো সহ আরও অনেক রকমের কাজ জেনারেট করতে পারবেন এই প্লাগিনের মাধ্যমে।

পরিশেষে এই প্লাগিন ব্যবহার করে আপনি যে ফলাফল পেতে পারেন সেটি হল। সার্চ ইঞ্জিন গুলির মধ্যে উচ্চতার একটি ফলাফল পাওয়া। এবং প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক জেনারেট করতে অনেকটাই সক্ষম হবেন শুধু প্লাগিনটি সঠিক ব্যবহার করতে পারলে।

ক্যাশ প্লাগিন এর ব্যবহার

আমরা অনেকে ওয়ার্ডপ্রেসকে স্পিড রাখার জন্য ক্যাশ প্লাগিন ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু এই প্লাগিন এর মাধ্যমে সত্যিই আপনার ওয়েবসাইটকে একটু দুর্দান্ত ফাস্ট রাখতে পারবেন। আমি নিজেও এই ক্যাশ প্লাগইনগুলো ব্যবহার করে থাকি। আর এই প্লাগিন ব্যবহার করার জন্য আমার ওয়েবসাইট দুর্দান্ত ফাস্ট থাকে। তাই আমি মনে করি যে এই ক্যাশ প্লাগইনগুলো ব্যবহার করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি প্লাগিন। আপনি পেজে খুঁজলে এরকম অনেক ক্যাশ প্লাগইন পাবেন। আর আমি আপনাকে অযথা সব ক্যাশ প্লাগিন ব্যবহার করতে বলবো না। আমি আপনাকে হাতেগোনা তিনটি ক্যাশ প্লাগিনের নাম বলবো আশা করি এই প্লাগিন ব্যবহার করলে আপনি ভালো ফলাফল পাবেন। তাদের মধ্যে তিনটির নাম হল।

1. WP super cache,
2. w3 total cache ,
3. LS cache,

ওপরে আমি এই তিনটি প্লাগিনের লিস্ট তুলে ধরলাম। প্রথম নাম্বারটা আপনি ব্যবহার করতে পারেন। তবে আসলে প্লাগিনগুলো হোস্টিং এর সার্ভার স্ট্রিক্স এর উপর নির্ভর করে কাজ করে থাকে। সুপার ক্যাচ প্লাগিনটা আমিও ব্যবহার করতাম। কিন্তু পরবর্তী টাইমে আবার w3 টুটাল ক্যাশ ব্যবহার করছি। আর কখনো দুইটা প্লাগিন একসাথে ব্যবহার করতে যাবেন না। কেননা এতে কোনো রেজাল্টই আপনি পাবেন না। আপনি এর মধ্য থেকে যে কোন একটি প্লাগিন ব্যাবহার করবেন। আপনি যদি ডাবলু 3 টোটাল কেস এর প্লাগিনটি ব্যবহার করেন। তাহলে মোটামুটি একটি ভালো রেজাল্ট পাবেন। আর যদি আপনার লাইট স্পিড ওয়েব সার্ভার থাকে। তাহলে উপরের দুটির একটি প্লাগিন ব্যবহার করবেন না। আপনি লাইট স্পিড এর LS cache প্লাগিনটি ব্যবহার করতে পারেন। এটি তাদের অফিশিয়াল একটি প্লাগিন। তাই সব প্লাগিন এর চাইতে আপনি এটাতে রেজাল্ট ভাল পাবেন। কেননা এটা লাইট স্পিড সার্ভারের সাথে যুক্ত করে বানানো হয়েছে।

ভিজিটর কাউন্টার প্লাগিন

আমাদের প্রতিনিয়ত একটি ওয়েবসাইট চালাতে হলে ভিজিটর চেক করতে হয়। আবার কোন ওয়েবসাইট থেকে কিরকম ভিজিটর আসলো কোন সোর্স থেকে কত ভিজিটর আসতেছে । এরকম একটা জানার প্রয়োজন পড়ে। তার জন্য উপর পেজে আপনি অনেক প্লাগিন পাবেন। সেগুলো ব্যবহার করে আপনি আপনার সাইটের ভিজিটর সবগুলো কন্ট্রোল করতে পারবেন। তবে তার জন্য আমার কাছে একটি ভালো টুলস মনে হচ্ছে WP Visitors Statics এ প্লাগইনটি। যদিও এর বিকল্প হিসেবে অনেক টুলস ব্যবহার করে ভিজিটর দেখা যায়। তাই আমি ভিজিটর দেখা নিয়ে বেশ কিছু বলতে চাচ্ছি না। পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে সেরা বলতে আমি গুগল এনালাইটিক্স ফুলকে ভালো মনে করে থাকি। যদি কারো এই টুলস ব্যবহার করার কোন সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে তার বিকল্প হিসেবে আমার এই সাজেস্ট করা প্লাগিনটি ব্যবহার করতে পারেন। অন্যথায় আপনি গুগল এনালাইটিক্স টুলস ব্যবহার করবেন। এতে আপনার ভিজিটর সঠিক নিয়ে কোন সন্দেহ থাকবে না।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যাকআপ প্লাগিন

আমাদের ওয়েবসাইট আমাদের কনটেন্ট আমাদের প্রাণ। বিশেষ করে কোনো কারণে যদি আমাদের ওয়েবসাইটের সকল ফাইল ডিলিট হয়ে যায়। মানে ওয়েবসাইট হারিয়ে গেল। তখন ব্যাপারটা কেমন লাগবে? আশা করি ব্যাপারটা আমি আর্টিকেল এর মধ্যে বোঝাতে পারবো না। তাই যদি আমরা ওয়েব সাইটের ফুল ব্যকআপ রাখি। তাহলে সার্ভার থেকে পরিচয় ডিলিট হয়ে গেল আমাদের কোন সমস্যা নেই। আমরা সেই সাইটকে আবার পুনরায় উদ্ধার করতে পারবো খুব সহজেই। আমরা যদি সাইটের সকল ফাইলগুলো আমাদের কাছে রাখি তাহলে সার্ভার থেকে ডিলিট হয়ে গেল আবার হোস্টিং এর মধ্যে সেই ফাইলগুলো সেটআপ করলে আমাদের সাইট আবার আগের মত হয়ে যাবে। আমরা সাধারনত ওয়েবসাইটের ভেতর থেকে সাইট ব্যাকআপ করে থাকি। আর সেটা হয়ে থাকে কোন এক মেনুয়ালি ভাবে। তবে কেমন হয় যদি আমাদের সাইট অটোমেটিক ব্যাকআপ নিতে থাকে? ব্যাপারটা একটু অন্যরকম ভাল হয়। আর তার জন্য আমাদের একটি প্লাগিন ব্যবহার করতে হবে। আপনি ইচ্ছে করলে অনেক লাগেন খুঁজে পেতে পারেন ওয়ার্ডপ্রেস স্টোর থেকে। সেখানে অনেক বেশি পরিমাণে প্লাগিন মজুদ রয়েছে।

আজকে আমি সবগুলো প্লাগিন এর নাম বলতেছি না। যে প্লাগিনগুলো মানুষ বেশি ইউজ করে সে প্লাগিনগুলো নিয়ে আলোচনা করব। কিন্তু আজকে আমি আলোচনা করব যে আমি যে প্লাগইনগুলো ব্যবহার করি বেশি ভালো পেয়েছি। সে প্লাগইনটি হচ্ছে updraftplus backup এ প্লাগিনটা আপনি দুই ভাবে পেতে পারেন। একটি ফ্রি আরেকটি প্রিমিয়াম। আপনি যদি ফ্রি ভার্শন ইউজ করেন তাহলে আপনাকে নির্দিষ্ট একটি ষ্টোরেজের মাধ্যমে সেটাকে অ্যাক্সেস দিতে হবে। মানে যেকোন ড্রাইভে আপনি ফাইল ট্রান্সফার করার অনুমতি দিতে পারেন। যেমন গুগোল ড্রাইভ। তাছাড়া আপনার যদি কোন ড্রাইভ কেন থাকে তাহলে সেই ড্রাইভের মেসেজ দিতে পারেন। আর আপনি যদি তাদের প্রিমিয়াম কোন ভার্সন ব্যবহার করেন তাহলে সেখানে আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণের একটি স্টোরেজ পাবেন। তার জন্য আপনাকে প্রতি মাসে কিছু একটা বিল প্রদান করতে হবে। আর আপনি যদি গুগল ড্রাইভ সেভ করার জন্য ইচ্ছুক থাকেন তাহলে আপনি গুগল রায় ব্যবহার করতে পারেন সেটা আপনার জন্য সম্পূর্ন ফ্রি হবে। আর আপনি ওই প্লাগিনের মধ্য থেকে কত সময় পর পর ব্যাকআপ রাখবেন সেটি সিলেক্ট করে দিলে সে প্লাগইনটি অটোমেটিক ভাবে আপনার ব্যাকআপ গুগল ড্রাইভে জমা হতে থাকবে। তাই আমি এই প্লাগইনটি সবচেয়ে সেরা একটি ব্যাকআপ প্লাগিন মনে করে থাকি। আপনারা নিঃসন্দেহে প্লাগিনটি ব্যবহার করতে পারেন।

You might also like
Leave A Reply

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy