কিভাবে আপনার পেজের অরগানিক অথবা ফ্রি রিচ বাড়াবেন?দারুন কিছু টিপস

কিভাবে আপনার পেজের অরগানিক রিচ বাড়াবেন সেটা জানার আগে একটু জেনে আসি কি কি এভোয়েড করবেন আপনি:-

সব কিছু অটো করে দিবেন না

ফেসবুক একটা সোশ্যাল মিডিয়া তাই আপনার ব্লগ পোস্ট সিডিউলকরার সাথে সাথে আপনার টিমের, আপনার ওয়ার্কপ্লেসের, আপনার বিজনেস প্রসেসিং এর ছবি ও দেন।

সব প্রোমোশনাল পোস্ট দিবেন না

কিছু সোশ্যাল পোস্ট করেন, দেশি বিদেশি বিখ্যাত মারকেটার বলে ৮০-২০ রুলস ফলো করার জন্য, যদি ২০% সেল পোস্ট করি তাহলে বাকি ৮০% পোস্ট হবে সোশ্যাল পোস্ট।

নকল লাইক কিনবেন না

৫ ডলারে ৫০০০ লাইকের অনেক অফার দেখা যায় ফেসবুকে, সেই লাইকগুলা কিনলে আপনার পেজের লাভের থেকে ক্ষতি ই বেশি হবে। কি ক্ষতি হবে? যে সব লাইক কিনেছেন তারা তো আপনার পেজে ও যাবে না আর এঙ্গেজমেন্ট কম থাকবে কিন্তু পেজের লাইক বেশি, সেটা কি ফেসবুকের পক্ষে ধরা খুব কঠিন?

এখন আসি কিভাবে আপনার পেজের পোস্টের অরগানিক অথবা ফ্রি রিচ বাড়াতে পারেন আপনি?

– আপনার উপস্থিতি এবং অথোরিটি তুলে ধরেন

আপনি হয়তো চিন্তা করছেন “আমার পেজের লাইক আসছে কিন্তু রিচ কমছে কেন? তাহলে এখানে আরো চিন্তা করতে হবে আপনার, চিন্তা করতে হবে এটা কেন হচ্ছে? এটা তখন ই হয় যখন আপনি কোন ব্র্যান্ড অথোরিটি তৈরি করতে পারেন না। আপনার ভ্যালু তৈরি করতে পারেন না।

মনে রাখবেন পেজের কোয়ালিটি মানেই পেজ লাইক না। অনেকে ১০ হাজার লাইকের একটা পোস্টে ২০০ লাইক পেতে পারে কিন্তু অনেকে আবার ১০ লাখ পেজের লাইকে ১০টা লাইকও পায় না, মনে হয় বুঝতে পারছেন ব্যাপারগুলা।তাই বিভিন্ন সোশ্যাল পোস্টের মাধ্যমে আপনার ফলোয়ারদের উপকার করুন, আপনার বিশ্বাসযোগ্যতা তুলে ধরুন, প্রমান করুন আপনি আছেন, কেউ অর্ডার করলে প্রোডাক্ট না দিয়ে ভেগে যাবেন না।

পেজের লাইকের অ্যাড অনেক বেশি টার্গেট করে তৈরি করেন

– আপনাকে এই ক্ষেত্রে কুয়ালিটি নির্ভর হতে হবে কুয়ান্টিটি থেকে, কিছুক্ষণ আগেই একটা উদাহারন দিয়েছি এটার উপর, তাই আপনার প্রোডাক্ট এনালাইসিস করে আপনার ক্রেতা কারা হতে পারে সেটা ভালো করে বুঝে সেই অনুযায়ী পেজের লাইক আনুন। আর আপনার পেজের পোস্টে যারা লাইক দিয়েছে অনেকেই আছে যারা আপনার পেজে লাইক দেয়া নেই, তাদেরকে আপনার পেজের লাইকের জন্য ইনভাইট করুন, কাজে আসবে।

আপনার প্রতিযোগীরা যখন ঘুমায় তখন পোস্ট করুন

টাইমের ব্যাপারে নির্দিষ্ট করে কিছু বলা আসলেই কঠিন, এটা নির্ভর করে, কিন্তু কিছু জিনিস আপনি মাইন্ডে রেখে দেন

– আপনার লোকেশন এবং সেখানকার অডিয়েন্স
– আপনার অডিয়েন্স প্রোফাইল (বয়স, ইন্টারেস্ট, পেশা ইত্যাদি)
– কি ধরনের কন্টেন্ট আপনি বানাচ্ছেন
– শিডিউল পোস্টের অপশন টা আপনাকে হেল্প করতে পারে

Coschedule বলছে দুপুর ১টা থেকে ৪টা পর্যন্ত পোস্টে ভালো রেস্পন্স পাওয়া যায়। তারা আবার দিন ভাগ করেও কিছু সময় বলেছে যেমন

শনিবার এবং রবিবার – দুপুর ১২টা থেকে ১টা
বৃহস্পতিবার আর শুক্রবার দুপুর ১টা থেকে ৪টা
বুধবারে ৩টা

আপনার অডিয়েন্স ইন্সাইট থেকে দেখে নিবেন আপনার কোন পোস্ট কবে এবং কখন বেশি রিচ পায়, রেস্পন্স ভালো থাকে।

এই লেখা ছাড়াও আরো বেশ কয়েকটা লেখা নিয়ে “ফেসবুক মার্কেটিং” নামে একটা বই আছে আমার লেখা, আগ্রহী হলে আমাকে ইনবক্স করতে পারেন। অধিকাংশ লেখাই উদ্যোক্তাদের ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে ধারনা দেয়ার জন্য লেখা যেন তারা নিজেরাই অনেক কিছু করতে পারে।

বিভিন্ন সংখায় পোস্ট দিয়ে পরীক্ষা করুন

কেউ কেউ আছে দিনে ২০টা ২৫টা পোস্ট করে যেটা একদম ই উচিৎ না, তার ফলে রিচ এবং এঙ্গেজমেন্ট কমে যায়, একটা বেসিক নিয়ম আছে সেটা হচ্ছে দিনে ১ টা থেকে ৩টা পোস্ট করেন, তবে নিয়ম মাঝে মাঝে ভাঙ্গা ও লাগে, তাই বিভিন্ন ভাবে দেখুন কোনটা কাজ করে, টাইম সম্পর্কে এবং কখন আপনার প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস সম্পর্কিত মানুষ অনলাইনে বেশি থাকতে পারে সেটা আন্দাজ করতে হবে আপনার সাথে পেজ ইনসাইট তো আছেই। আরেকটা কথা পেজের পোস্ট বেশি দিতে গিয়ে পোস্টের মান খারাপ না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন।

অন্য পেজের সাথে পার্টনার হয়ে কাজ করুন

আপনি শুধু শাড়ি বিক্রি করেন, আরেকজন করে জুতা, আপনারা কিন্তু কম্পিটিটর না তবে এক ই লাইনের, তাই আপনারা একে অপরের পোস্ট শেয়ার করতে পারেন, তাদের ট্যাগ করতে পারেন, এখানে দুই পক্ষের ই লাভ, এটা আমাদের দেশে কেন এত কম দেখা যায় আমি জানি না তবে এটা করা উচিৎ, আর আপনার পেজের লাইক ১ হাজার, কোম্পানি ও নতুন তাই তাদের সাথেই যোগাযোগ করেন যারা আপনার মত ই নতুন, একদম নতুনদের সাথে হয়তো অনেক বড় ব্র্যান্ড কাজ করবে না।লিখেছেনঃ Md. Ariful Islam

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *